যুব সমাজের উদ্দ্যেগে রাস্তা মেরামত

0

বাউফল প্রতিনিধি :

দীর্ঘ দিন রাস্তা মেরামত না হওয়ায় জন দূর্ভোগ চরমে। পটুয়াখালী জেলার বাউফল উপজেলার ধুলিয়া এবং কেশবপুর ইউনিয়ানের প্রধান সড়কটি দীর্ঘ দিন মেরামত না করায় চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পরে।জনপ্রতিনিধির আশায় থেকে থেকে আসছে ঈদকে সামনে রেখে স্থানীয় যুব সমাজের উদ্দ্যেগে রাস্তাটি চলচলের জন্য মেরামত করা হয়। ধুলিয়া ও কেশবপুর ইউনিয়ানের বেশ কয়টি গ্রামের মানুষের বন্ধর বাজার কালিশুরী, উপজেলার সংযোগ সড়ক এই রাস্তাটি। রাস্তাটি চলাচলের অনুপযোগী হওয়ায় ঐ এলাকার ব্যবসায়ী ভারায় চালিত হুন্ড/ মটোর সাইকেল চালকদের আয়ের পথ প্রায় বন্দের পথে। রিসকা, হুন্ডা, আটো গাড়ি চলাচল তো দূরের কথা পায়ে হেটে মানুষ চলাচল করাই বন্ধ হয়ে পরেছে বছর খানেক যাবত। সিকদার বাজার টু কালিশুরির রাস্তায় ভারায় চলিত হুন্ড/ মটোর সাইকেল আছে প্রায় শ – খানেক, চার্জে চলিত আটো আছে ৫০ টির ও বেশি এবং আছে অনেক রিসকাও, সব মিলিয়ে এই রাস্তাটি প্রায় ২০০/ ২৫০ জন লোকের আয়ে উপার্জনের রাস্তা। স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের উপজেলা প্রকৌশলীর সাথে কথা হলে তিনি জনান রাস্তাটি রক্ষনাবেক্ষনের জন্য টেন্ডার হয়েছে, কাজ শুরু হবে কিছু দিনের মধ্যেই। প্রকল্পে জটিলতা থাকায় কাজটি ধরতে দেরি হচ্ছে।এলাকাবাসির প্রশ্ন এভাবে আর কত দিন..? সব শেষে কোনো উপায় না দেখে সকলে উদ্দ্যেগ নিয়ে রাস্তা মেরামতের কাজে নেমে পরেছেন। ভারায় চালিত হুন্ড/ মটোর সাইকেল চালক ভাইদের সাথে কথা হয় — তারা বলেন যে, ভাই আর কত দিন আমরা অনাহারে থাকবো , বছরের সব সময় তো ভালো উপার্জন হয়না দুই ঈঁদে যখন শহরের লেকজন গ্রামে আসে তখন আমাদের উপার্জন ভালো হয় । কিন্তু রাস্তার বেহাল দশা দেখে কেউ গাড়িতে চলাচল করতে চায় না, বর্তমানে আমাদের ড্রাইভারদের কোনো ইনকাম নাই, আমাদের ও তো সংসার আছে ভাই, কোন দিন ৫০ টাকা আবার কোনো দিন ৮০ টাকা হয় কিন্তু এই ইনকাম দিয়ে তো সংসার চালানো বর্তমান বাজারে চলা খুবই কষ্টকর। রাস্তা ভাল থাকলে প্রতিদিন ৫০০- থেকে ৮০০ টাকা ইনকাম করা যায় । কুরবানির ঈঁদ কে সাবনে রেখে সব শেষে কোনো উপায় না পেয়ে এলাকার যুবক ও ভারায় চালিত হুন্ড/ মটোর সাইকেল চালকরা নিজেরাই রাস্তা মেরামোতের কাজে নেমে পরেন।

Share.

Leave A Reply