ঘুষ গ্রহন ও প্রদান কারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে: প্রধানমন্ত্রী

0

নিজস্ব প্রতিনিধি

কেবল ঘুষ গ্রহণই নয়, ঘুষ প্রদানকারীও সমান অপরাধী। তার বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নিতে হবে। এ ছাড়া সরকারি কর্মকর্তাদের আয়-ব্যয়ের হিসাব নেওয়ার ওপরও গুরুত্বারোপ করে আজ রোববার সকালে প্রধানমন্ত্রী তাঁর কার্যালয়ে কর্মকর্তাদের সঙ্গে ঈদুল আযহা পরবর্তী শুভেচ্ছা বিনিময়কালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, যে ঘুষ নেবে শুধু সে না, যে দেবে সেও অপরাধী। এই জিনিসটা মাথায় রাখা দরকার এবং এভাবে ব্যবস্থা নেওয়া দরকার। এভাবে যদি আমরা ব্যবস্থা নিতে পারি, এটা নিয়ন্ত্রণ করি, তাহলে অনেক কাজ আমরা দ্রুত করতে পারব। এক্ষেত্রে আমাদের দুর্নীতি দমন কমিশন যথেষ্ট সক্রিয় আছে।”
দুর্নীতি দমনে দুদক যথেষ্ট সক্রিয় উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, উন্নয়নের ধারা ত্বরান্বিত করতে সবাইকে একসাথে কাজ করতে হবে।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘যেখানে আজকে আমরা এগিয়ে গেছি, প্রবৃদ্ধি অর্জন করে বা দারিদ্র্য বিমোচন আজকে ২১ ভাগে এনেছি, এটা আরো কমাতে চাই। আমি আগেই বলেছি, আমার একটা লক্ষ্য আছে যে দেশ আমাদের স্বাধীনতাকে শুধু বিরোধিতাই করে নাই, বলেছিল বাংলাদেশ স্বাধীন হয়ে কী হবে ? একটা বটমলেস বাস্কেট (তলাবিহীন ঝুড়ি) হবে, সেই দেশটার থেকেও যেন আমাদের দারিদ্র্যের হার কমে, এক পার্সেন্ট হলেও কমাতে হবে, এটাই আমাদের লক্ষ্য। কাজেই তারা উন্নত দেশ হতে পারে, কিন্তু আমরা যে পারি, সেটা আমাদের প্রমাণ করতে হবে। সে ক্ষেত্রে আমাদের এই দপ্তরের কিন্তু বিরাট ভূমিকা রয়েছে।’
ডেঙ্গু মোকাবিলায় সতর্কতা ও সচেতনতা আরো বাড়ানোর পাশাপাশি জেলা শহরগুলোতে এর প্রার্দুভাব ঠেকাতে সংশ্লিষ্ট সবাইকে একযোগে কাজ করার আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
তিনি বলেন, ‘ডেঙ্গু একটা বিরাট সমস্যা। এবার শুধু আমাদের দেশে নয়, আমাদের আশপাশে অনেক দেশেই কিন্তু ডেঙ্গু দেখা দিয়েছে। কোনো কোনো দেশে তো মহামারি আকারে দেখা গিয়েছে। ইমার্জেন্সি ডিক্লিয়ার করতে বাধ্য হয়েছে’।
ডেঙ্গুর বিষয়ে দেশবাসীকে সচেতন থাকার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘ডেঙ্গু হওয়ার সাথে সাথে ডাক্তার যে নির্দেশগুলো দিয়েছে..প্রচুর পরিমানে পানি পান করা বা পানীয় জাতীয় খাবার যত নেওয়া যায় সেগুলো নেওয়া। একটু সচেতন থাকা, মশারি ব্যবহার করা’।
‘এছাড়া এটা মোকাবেলার জন্য যা যা করা দরকার সেগুলো করা হচ্ছে। নিজেদেরকে সচেতন থাকতে হবে। নিজের ঘর বাড়ি পরিষ্কার রাখা, কোথাও ডেঙ্গু মশা যেন জন্ম না নিতে পারে সে দিকে সচেতনতা সৃষ্টি করা, নিজে সচেতন থাকা এবং নিজেকে সুরক্ষিত রাখাই হচ্ছে প্রথম কাজ ।

প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব নজিবুর রহমানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম, তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী, মশিউর রহমান, এসডিজি বিষয়ক মুখ্য সমন্বয়ক আবুল কালাম আজাদ, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব সাজ্জাদুল হাসান, প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

Share.

Leave A Reply